২৩ সন্দেহজনক মৃত্যুর পর টিকা নীতিতে পরিবর্তন আনলো নরওয়ে

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ৯:০১ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৬, ২০২১ | আপডেট: ৯:০১:অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৬, ২০২১

নরওয়েতে ফাইজারের তৈরি করোনা ভাইরাসের টিকা নেওয়ার পর অন্তত ২৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। দেশটির কর্তৃপক্ষকে উদ্ধৃত করে ব্লুমবার্গের এক প্রতিবেদনে এই তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে। মৃতদের মধ্যে ১৩ জনই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গিয়েছেন।

তবে মৃত্যুর ঘটনাটি করোনা ভ্যাকসিনের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ার কারণে হতে পারে বলে জানিয়েছে দেশটির হেলথ রেগুলেটর। নরওয়েজিয়ান মেডিসিন এজেন্সির মেডিক্যাল ডিরেক্টর স্টেনার ম্যাডসেন বলেছেন, এটি একটি কাকতালীয় ঘটনা হতে পারে। তবে আমরা নিশ্চিত নই। তিনি আরো বলেছেন, এই মৃত্যু ও ভ্যাকসিনের মধ্যে নিশ্চিত কোনো সম্পৃক্ততা নেই।

এক বিবৃতিতে নরওয়েজিয়ান মেডিসিন এজেন্সি বলছে, মারা যাওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে ১৩ জনের ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, এমআরএনএ ভ্যাকসিনগুলোর সাধারণ পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া যেমন জ্বর, বমি বমি ভাব ও ডায়রিয়ার কারণে তাদের মৃত্যু হয়ে থাকতে পারে।

স্টেনার ম্যাডসেন বলেছেন, এই সাধারণ প্রতিক্রিয়াগুলো বয়স্ক ব্যক্তিদের জন্য প্রতিকূল হতে পারে। তবে সুস্থ সবল ব্যক্তিদের জন্য এটি বিপজ্জনক নয়। ভ্যাকসিনের প্রতিক্রিয়া হওয়া অস্বাভাবিক নয়। আমরা এ নিয়ে শঙ্কিত বা চিন্তিত নই। কারণ এগুলো খুব বিরল ঘটনা। এগুলো অত্যন্ত গুরুতর রোগীদের শরীরে ঘটে।

নরওয়েতে ২৩ জনের মৃত্যুর ঘটনার পর দুর্বল বয়স্কদের টিকা দেওয়ার বিষয়ে আরও বিশদ পরামর্শসহ করোনার টিকাদান নীতি আপডেট করেছে নরওয়েজিয়ান সরকার এবং নরওয়েজিয়ান ইনস্টিটিউট অব পাবলিক হেলথ। চিকিৎসকরা এখন থেকে রোগীদের করোনা ভ্যাকসিন দেওয়ার ক্ষেত্রে এর ঝুঁকি এবং খুব দুর্বল রোগীদের ভ্যাকসিনের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলো মূল্যায়ন করবেন।

নরওয়ে গত কয়েক সপ্তাহে ৩০ হাজারেরও বেশি মানুষকে করোনার টিকা দিয়েছে। দেশটির হেলথ রেগুলেটর বলেছে, নার্সিংহোম ও দীর্ঘমেয়াদী সেবা দেয় এমন প্রতিষ্ঠানগুলোতে প্রতি সপ্তাহে গড়ে চারশ জন মারা যান। নরওয়েজিয়ান মেডিসিন এজেন্সি বলছে, নরওয়েতে বয়স্ক ব্যক্তি এবং নার্সিংহোমে থাকা গুরুতর রোগে আক্রান্ত প্রবীণদের টিকা দিচ্ছি। কাজেই আশা করা হচ্ছে, টিকা দেওয়া হচ্ছে এমন সময়টির কাছাকাছি সময়ে মৃত্যুর ঘটনা ঘটতে পারে। টিকা দেওয়ার প্রথম কয়েক দিনের মধ্যে ঘটে যাওয়া সমস্ত মৃত্যুর ঘটনা সতর্কতার সঙ্গে মূল্যায়ন করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার ১৪ জানুয়ারি পর্যন্ত সন্দেহজনক মৃত্যুর ২৩টি রিপোর্ট নরওয়ের এডিআর স্বাস্থ্য রেজিস্ট্রিতে জমা দেওয়া হয়েছে। সন্দেহজনক প্রতিকূল প্রতিক্রিয়ার বেশ কয়েকটি রিপোর্ট প্রতিদিনেই পাওয়া যাচ্ছে। এগুলো ক্রমাগত মূল্যায়ন করা হচ্ছে।

ব্লুমবার্গের কাছে এক বিবৃতিতে ফাইজার জানিয়েছে, সংস্থাটি দেশটির হেলথ রেগুলেটরের সঙ্গে কাজ করছে। এ পর্যন্ত ঘটনাগুলো ঘটেছে তা ‘উদ্বেগজনক নয়’। এই ঘটনাগুলো তাদের প্রত্যাশার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ।

সূত্র: দ্য জার্নাল।