৭ জেলায় লকডাউনে সরকারি-বেসরকারি অফিস বন্ধ থাকলেও খোলা গার্মেন্টস

প্রকাশিত: ৭:০৭ অপরাহ্ণ, জুন ২১, ২০২১ | আপডেট: ৭:০৭:অপরাহ্ণ, জুন ২১, ২০২১
ফাইল ছবি

করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে সরকার ঢাকার চারপাশে সাতটি জেলায় লকডাউন ঘোষণা করেছে। এসব এলাকায় বন্ধ থাকবে সর সরকারি ও বেসরকারি অফিস। তবে খোলা থাকবে গার্মেন্টস কারখানা।

লকডাউনের মাঝেও নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুরসহ সাত জেলায় গার্মেন্টস কারখানা চালু থাকবে বলে সোমবার বিকেলে নিশ্চিত করেছেন বিজিএমইএ’র পরিচালক মহিউদ্দিন রুবেল।

সোমবার (২১ জুন) বিকেলে বিজিএমইএর এই পরিচালক বলেন, আজ ২১ জুন নম্বর: ০৪.০০.০০০০.৫১৪.১৬.০০৩.২০.১৮৭ ‘করোনাভাইরাসজনিত রোগ (কোভিড-১৯) এর বিস্তার রোধকল্পে সার্বিক কার্যাবলী/চলাচলে বিধি-নিষেধ আরোপ’ প্রসঙ্গে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ একটি নোটিশ জারি করেছে। আপনাদের সদয় অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, তৈরি পোশাকখাত এর আওতা বহির্ভূত থাকবে।

এর আগে সোমবার বিকেলে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম জানান, করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে মঙ্গলবার (২২ জুন) সকাল ৬টা থেকে দেশের ৭ জেলায় লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। আগামী ৩০ জুন (বুধবার) রাত ১২টা পর্যন্ত এ সিদ্ধান্ত কার্যকর থাকবে। এই ৯ দিন এসব জেলা একরকম ‘ব্লকড’ থাকবে।

জেলাগুলো হলো- মানিকগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর, রাজবাড়ী, মাদারীপুর ও গোপালগঞ্জ।

এসব জেলায় ৩০ জুন পর্যন্ত সাধারণ মানুষের চলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ থাকবে। গণপরিবহন চলাচল করবে না। বাজার-শপিংমল বন্ধ থাকবে। সরকারি-বেসরকারি অফিসও বন্ধ থাকবে (জরুরি সরকারি অফিস ছাড়া)। এই লকডাউনের সময় কেবল আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিবহন এবং জরুরি পরিষেবায় নিয়োজিত পরিবহন চলাচল করতে পারবে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘জেলাগুলো ব্লকড থাকবে, কেউ ঢুকতে পারবে না।’