৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চলবে মমতার অবস্থান ধর্মঘট

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২:৪৮ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৫, ২০১৯ | আপডেট: ১২:৪৮:পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৫, ২০১৯
সংগৃহীত ছবি

ভারতে লোকসভার নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ইতিমধ্যে দেশজুড়ে নির্বাচনী প্রচারণায় নেমেছে ক্ষমতাসীন দল বিজেপি, বিরোধী কংগ্রেস সহ ছোট-বড় সব রাজনৈতিক দলই।

পশ্চিমবঙ্গও তার ব্যতিক্রম নয়। তারপর পশ্চিমবঙ্গে বাজেট অধিবেশন। সবমিলিয়ে চূড়ান্ত ব্যস্ততা থাকার কথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির। সোমবারও পূর্বনির্ধারিত একগুচ্ছ কর্মসূচি ছিল। কিন্তু আচমকা একটা সিবিআই ঝড় এসে সব তালগোল পাকিয়ে দিল।

রাজ্য সরকারের সচিবালয় ‘নবান্ন’ উড়ে আসল কলকাতার রাজপথে। সেখানেই বসল মন্ত্রিসভার বৈঠক। দেওয়া হল প্রয়োজনীয় নির্দেশ। সই হল একাধিক গুরুত্বপূর্ণ ফাইলেও। এমনকি হুগলির তারকেশ্বরে মমতার পূর্ব নির্ধারিত একটি সভার দিনও পিছিয়ে দেওয়া হল।

রবিবার সন্ধ্যায় কলকাতার পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারের বাড়িতে অভিযান চালাতে আসে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা সিবিআই’এর কর্মকর্তারা। আর তার পরই গণতন্ত্র, সংবিধান দেশ রক্ষার দাবিতে রাত পৌণে ৯ টা নাগাদ ধর্মতলা চত্বরে মেট্রো চ্যানেলে অবস্থান বিক্ষোভ (ধরনা) শুরু করেন মমতা ব্যানার্জি।

সোমবার ছিল রাজ্য বাজেট অধিবেশন। তার আগে এদিন দুপুরে ওই ধরনা মঞ্চের পাশে পুলিশ আউটপোস্টে বসে মন্ত্রিসভার বৈঠক। যাবতীয় প্রশাসনকি কাজকর্ম করা হয়। সই করা হয় একাধিক গুরুত্বপূর্ণ ফাইল। সেইসাথে বাজেট অধিবেশনের জন্য নেওয়া হয় কিছু গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত, পরে সেই সিদ্ধান্তগুলি রাজ্য বিধানসভায় পেশ করা হয়।

এরপর বিকালের দিকে মমতার অনুপস্থিতিতেই বাজেট পেশ করেন অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র। মমতার নির্দেশেই মন্ত্রিসভার সদস্যরা ধরনা মঞ্চে না থেকে বাজেট অধিবেশনে যোগ দেয়।
Add Image
পরে ধরনা মঞ্চ থেকেই ফেসবুক লাইভের মাধ্যমে কলকাতার নেতাজী ইন্ডোর স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত কৃষক সমাবেশে বক্তব্য রাখেন মমতা। এমনকি এদিন সন্ধ্যায় ধরনা মঞ্চের পাশে আরেকটি মঞ্চ করে সেখান থেকেই কলকাতা পুলিশের বিভিন্ন কর্মকর্তাদের ‘পুলিশ পদক’ সম্মাননা তুলে দেওয়া হয়।

এসময় মমতা জানান ‘কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা যতই মিথ্যে অভিযোগ প্রমাণ করার চেষ্টা করুক না কেন আমরা রাজীব কুমারের পাশে আছি।’

এর আগে ধরনা মঞ্চ থেকেই মমতা ঘোষণা দেন আগামী ১২ ফেব্রুয়ারি থেকে রাজ্যে মাধ্যমিক পরীক্ষা শুরু হচ্ছে, সেক্ষেত্রে মাইক ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা থাকছে। তাই আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চলবে তার এই গণতন্ত্র বাঁচাও আন্দোলন। এদিকে এদিন সারাদিন ধরেই মেট্রো চ্যানেলের অবস্থান মঞ্চে এসে তাকে সমর্থন জানান রাজনীতিবিদ থেকে শুরু করে সমাজের বিভিন্ন পেশার বিশিষ্টরা।

কবি জয় গোস্বামী, সঙ্গীতশিল্পী সৈকত মিত্র, শিবাজী চট্টোপাধ্যায়, মন্ত্রী ইন্দ্রনীল সেন, দলের সাংসদ দোলা সেন-ছিলেন সকলেই। কেউ কেউ আবার গানও পরিবেশন করেন। আর মমতাকে দেখতে মেট্রো চ্যানেলে ছিল উৎসুক জনতা ভিড়।

কেন্দ্রের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে মমতার ধরনা মঞ্চে বসার পর থেকে দিনভর দেশের রাজনীতি যেমন উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে। অন্যদিকে সোশ্যাল মিডিয়ায় ‘ট্রোল’র শিকার হয়েছে মমতার এই ধরনা মঞ্চ। কোথাও আবার মমতাকে পুলিশ কর্মকর্তা সাজিয়ে হিন্দি ছবি ‘সিংহম’এর নকল করা হয়েছে।
Add Image