The Bangladesh Today | Uniting people everyday

ঢাকা মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২২

মদ্যপ অবস্থায় দুর্ঘটনা রোধে শিলিগুড়ি পুলিশের অভিনব উদ্যোগ

মদ্যপ অবস্থায় দুর্ঘটনা রোধে শিলিগুড়ি পুলিশের অভিনব উদ্যোগ
শিলিগুড়ির রাস্তা। ছবি: উইকিপিডিয়া

মদ্যপ অবস্থায় যাতে কেউ সড়ক দুর্ঘটনার শিকার না হয় সেজন্য অভিনব উদ্যোগ নিচ্ছে পশ্চিমবঙ্গের শিলিগুড়ি পুলিশ। রেস্তোরাঁ কিংবা বারে বসে মদপান করলেও আর দুশ্চিন্তা করতে হবে না। কারণ যারা বারে বা রেস্তোঁরায় বসে মদপান করবেন তাদের বাড়ি পৌঁছে দেওয়ার দায়িত্ব নেবে পুলিশ। এ বিষয়ে খুব শিগগিরই প্রতিটি বার ও রেস্তোরাঁয় তৈরি হবে মনিটরিং টিম।

বুধবার (১ ডিসেম্বর) সেভ ড্রাইভ, সেভ লাইফের এক অনুষ্ঠানে শিলিগুড়ির পুলিশ কমিশনার গৌরব শর্মা এসব তথ্য জানিয়েছেন।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম আজতক জানায়, করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতেই আবার শহরের অধিকাংশ রেস্তরাঁ কিংবা বারে ভিড় বাড়ছে সুরা প্রেমীদের। তার উপর সামনেই রয়েছে বড়দিন এবং ইংরেজি নতুন বর্ষবরণ। স্বভাবিকভাবেই আনন্দ উল্লাসে মাতবে এই প্রজন্মের যুবক যুবতীরা। ফলে মদ্যপ অবস্থায় যাতে কেউ পথ দুর্ঘটনার শিকার না হন, তার জন্য অভিনব উদ্যোগ নিচ্ছে পুলিশ। এবার থেকে রেস্তরাঁ কিংবা বারে বসে সুরা পান করার পর নেশাগ্রস্ত অবস্থায় থাকলে যদি কেউ গাড়ি চালাতে সক্ষম না থাকেন, তাঁকে বাড়ি পৌঁছে দেবে পুলিশ। জলেশ্বরী বাজারে রাজ্য সরকারের সেফ ড্রাইভ সেভ লাইফ অনুষ্ঠানে যোগ দিতে এসে ঘোষণা শিলিগুড়ির পুলিশ কমিশনারের। 

প্রসঙ্গত, শীতকালে মূলত বর্ষবরণ এবং বড়দিনের অনুষ্ঠানের আগে অধিকাংশ ক্ষেত্রে পথ দুর্ঘটনা হয় গাড়ি চালকদের মদ্যপানের কারণে। তাই এবছরও আগেভাগেই শহরে পথ দুর্ঘটনা কম করতে এই উদ্যোগ নিয়েছে শিলিগুড়ি কমিশনারেটের পুলিশ। পাশাপাশি শহরে বেশ কিছু ট্রাফিক ফাঁড়ির সংখ্যা বাড়ানোর পাশাপাশি মূল সড়ক সংলগ্ন বাজার ও দোকানে সিসি ক্যামেরা বসানোর উদ্যোগ নেওয়ার হচ্ছে।

এদিন পুলিশ কমিশনার গৌরব শর্মা বলেন, 'সামনে বড়দিন তারপর নতুন ইংরেজি বর্ষবরণ৷ আর সেই সময় মদ্যপ অবস্থায় পথ দুর্ঘটনা বেড়ে যায়। সেজন্য আমরা শহরের বিভিন্ন রেস্তরাঁ, বার মালিকপক্ষের সঙ্গে বৈঠক করব। তাঁদের নির্দেশ দেওয়া হবে যাতে তাঁদের বার ও রেস্টুরেন্টে একটি মনিটরিং টিম থাকবে যারা মদ্যপদের পরিস্থিতি যাচাই করবে। কেউ যদি অতিরিক্ত মদ পান করে থাকেন, তবে পুলিশকে জানাবে। পুলিশ তাঁকে বাড়ি ছেড়ে আসবে। অথবা স্থানীয় ট্যাক্সি ইউনিয়নের মাধ্যমে তাঁকে বাড়ি পৌঁছে দিয়ে আসবে।' 

 


আরও পড়ুন