The Bangladesh Today | Uniting people everyday

ঢাকা সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১

তালেবানের অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব নিয়ে মুখ খুললেন মোল্লা বারাদার

তালেবানের অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব নিয়ে মুখ খুললেন মোল্লা বারাদার
সংবাদ সম্মেলনে মোল্লা বারাদার। ছবি: সংগৃহীত

অন্তর্বর্তী সরকার গঠন নিয়ে তালেবান নেতাদের মধ্যে দ্বন্দ্ব দেখা দিয়েছে বলে যে সংবাদ প্রচার করা হয়েছে তা মিথ্যা বলে দাবি করেছেন আফগানিস্তানের উপপ্রধানমন্ত্রী আব্দুল গনি বারাদার। একই সঙ্গে তিনি আহত হওয়ার খবরও উড়িয়ে দিয়েছেন।

বুধবার এক সাক্ষাৎকারে তিনি এমন দাবি করেন। খবর এনডিটিভির।

দোহার তালেবানের রাজনৈতিক কার্যালয় থেকে টুইটারে পোস্ট করা একটি ভিডিও সাক্ষাৎকারে মোল্লা বারাদার বলেন, আমি ভালো এবং সুস্থ আছি।

আফগানিস্তানের এ উপপ্রধানমন্ত্রী বলেন, মিডিয়া বলছে—আমাদের মধ্যে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব দেখা দিয়েছে। কিন্তু আমাদের মধ্যে এমন কিছু নেই। দ্বদ্বের খবর সত্যি নয়। এটি নিয়ে চিন্তার কোনো কারণ নেই।

‘শত্রুদের অপপ্রচার’ মিথ্যা প্রমাণিত করতে এ সাক্ষাৎকার আরটিএ টিভিতে দেখানো হবে বলে জানান তালেবানের সাংস্কৃতিক কমিশনের এক কর্মকর্তা।

মোল্লা বারাদার বলেন, ‘আল্লাহর প্রতি কৃতজ্ঞতা যে আমাদের মধ্যে প্রচুর দয়া এবং ক্ষমার মনোভাব রয়েছে। আর এটি এমন যে তা কোনও পরিবারের মধ্যেও থাকে না। এছাড়া আমরা বহু বছর ধরে দখলদারিত্ব অবসানের জন্য দুর্ভোগ সহ্য করেছি, ত্যাগ স্বীকার করেছি। এর কোনওটাই ক্ষমতা কিংবা পদ পাওয়ার জন্য নয়।’

কাবুলের বাইরে একটি সফরে থাকার দাবি করে মোল্লা বারাদার বলেন, যে স্থানে সফর করছিলাম সেখানে সংবাদমাধ্যমের দাবি খণ্ডানোর উপায় ছিলো না। তিনি বলেন, সেকারণে আমরা আফগান জনগণ এবং সব সিনিয়র ও জুনিয়র মুজাহিদিনদের আতঙ্কিত না হতে বলছি, উদ্বিগ্ন হওয়ার আসলে কিছু নেই।’

গত রবিবার কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কাবুল সফরের সময় প্রধানমন্ত্রী মোল্লা মোহাম্মদ হাসান আখুন্দের সঙ্গে তার সাক্ষাৎ হলেও ছিলেন না মোল্লা বারাদার। এই বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমরা জানতাম না কাতার থেকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আসছেন। জানতে পারলে আমরা সফর স্থগিত করতাম। আর আমরা সফরে থাকার কারণেই সাক্ষাৎ ঘটেনি। পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে সফর থেকে ফেরা সম্ভব ছিলো না। আগে খবর পেলে আমরা অন্য বন্ধুদের সঙ্গে বৈঠকে যোগ দিতাম।’

তালেবান কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, মোল্লা বারাদার কান্দাহারে গেছেন। সেখানে গ্রুপটির সর্বোচ্চ নেতা হাইবাতুল্লাহ আখুন্দজাদা বসবাস করেন বলে মনে করা হয়।