The Bangladesh Today | Uniting people everyday

ঢাকা সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১

পুরো হিন্দুস্তান ধ্বংস করে দেব: আইএসকের হুমকি

পুরো হিন্দুস্তান ধ্বংস করে দেব: আইএসকের হুমকি
ফাইল ছবি

পুরো হিন্দুস্তানকে ধ্বংস করে দেয়ার হুমকি দিয়েছে জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট খোরাসান (আইএসকে)। কিছুদিন আগে এই সংগঠনটিই কাবুল বিমানবন্দরে হামলা চালিয়ে বহু মানুষকে হতাহত করেছিল বলে জানা যায়। এবার তারা নজর দিচ্ছে ভারতের দিকে। ভারতের বর্তমান পত্রিকায় প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, টেলিগ্রাম মেসেজিং অ্যাপে পুরো হিন্দুস্তানকে ধ্বংস করে দেয়ার হুমকি দিয়েছে আইএসকে। পোস্টার আকারে দেওয়া ওই হুমকি বার্তায় জঙ্গি সংগঠনটি বলেছে, কাশ্মির থেকে কেরল, পূর্ব (বাংলা) থেকে পশ্চিম (গুজরাট), তোমাদের ভূমি ধ্বংস করে দেব। শ্রীলঙ্কায় কী হয়েছিল, নিশ্চয়ই তোমাদের মনে আছে!

আইএসকের দেয়া ওই পোস্টারে কালাশনিকভ রাইফেল কাঁধে একজনের ছবি রয়েছে। ভারতীয় গোয়েন্দারা পরীক্ষা নিরীক্ষা চালিয়ে নিশ্চিত করেছেন, ছবিটি আইএসকে সদস্য আলি উবেরের। উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ২১ এপ্রিল ইস্টারের দিন শ্রীলঙ্কার রাজধানী কলম্বোতে সিরিজ বোমা হামলার ঘটনায় প্রায় ৩০০ জনের মৃত্যু হয়েছিল। সে হামলার দায় স্বীকার করে আইএসকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে যে বার্তা দিয়েছিল, সেখানেও আলি উবেরকে দেখা গিয়েছিল।

প্রাথমিকভাবে ভারতের গোয়েন্দারা ধারণা করেছিল, সম্ভবত পাকিস্তান-আফগানিস্তান সীমান্তের নানগরহর থেকে তিন-চারদিন আগে বার্তা সম্বলিত পোস্টটি করেছে আইএসকে। আগেও সোশ্যাল মিডিয়ায় জনৈক হাজি আল বদরি আইএসের বার্তা প্রচারের সময় আফগানিস্তানের গোপন ঘাঁটি ব্যবহারের দাবি করেছিল।

কিন্তু পরবর্তীতে ভারতের গোয়েন্দারা জানতে পারেন, আইএসকের ওই বার্তা আসলে ভারতের কোনো এক জায়গা থেকেই প্রচার করা হচ্ছে। অনেক তল্লাশির পর কর্ণাটকের ভাটকল থেকে জুফারি জাওয়ার দামুদি নামে এক ব্যক্তিকে সহযোগীসহ আটক করা হয়।

জানা যায়, এই জুফারিই হাজি আল বদরি ছদ্মনাম নিয়ে আইএসকের মতাদর্শ প্রচার করছিলেন। এবারও সে রকম কোনো ঘটনা ঘটছে কিনা তা খতিয়ে দেখতে শুরু করেছে ভারতের গোয়েন্দা সংস্থাগুলো।

তালেবান কর্তৃক কাবুল দখলের দিন ১৫ আগস্ট বাগরাম জেলের বন্দিদের মুক্ত করে দেয়া হয়। সেখানে তালেবান বন্দিদের পাশাপাশি আইএসকের জঙ্গিরাও ছিলেন। ছাড়া পাওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে ১৪ জন ভারতীয় নাগরিক ছিলেন। তাদের সবাই ছিলেন আইএসকের সদস্য।

ভারতের গোয়েন্দাদের অভিযোগ, এরাই এখন টেলিগ্রাম, হুপের মতো বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে তরুণ-যুবকদের মগজওয়াশ করে চলছে।

সূত্র: ২৪ লাইভ নিউজ।


আরও পড়ুন