The Bangladesh Today | Uniting people everyday

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১

শিরোনাম
  • চৌমুহনীতে নিহত ও ক্ষতিগ্রস্ত মন্দিরে এমপির আর্থিক সহায়তা প্রদান চিলমারীতে এক রাতেই তিস্তায় বিলীন ১৫ বাড়ি চিলমারীতে জেলের জালে ধরা পড়ল সাড়ে ১৫ কেজির বোয়াল মাছ বিএনপি সরকারের আমলে রেলের কোন উন্নয়ন হয়নি: রেলমন্ত্রী বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে সশরীরে ক্লাস শুরু ভারী বৃষ্টিপাত ও বন্যায় মধুখালীর সবজি বাজারে আগুন সংখ্যালঘুদের ওপর হামলা ও সহিংসতার প্রতিবাদে বাগেরহাটে হিউম্যান রাইটস্ ডিফেন্ডার্স ফোরামের মানববন্ধন​​​​​​​ মুরাদনগরে সিএনজি চালক হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় আরও ৩ জন গ্রেফতার সাম্প্রদায়িক হামলা ও ধর্মীয় সহিংসতার প্রতিবাদে মাভাবিপ্রবিতে মানববন্ধন পাপুয়া নিউগিনিকে হারিয়ে সুপার টুয়েলভে বাংলাদেশ
  • যে কারণে নিজেদের বিমানে নিউইয়র্ক সফর, জানালেন প্রধানমন্ত্রী

    যে কারণে নিজেদের বিমানে নিউইয়র্ক সফর, জানালেন প্রধানমন্ত্রী
    ছবিঃ সংগৃহীত

    কেন নিউইয়র্ক সফরে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের চার্টার্ড ফ্লাইট ব্যবহার করছেন- তার ব্যাখ্যা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

    প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের ড্রিমলাইনার, সেটা নিয়েই আমি বাংলাদেশ থেকে এসেছি। কেন এসেছি? দুটো কারণ। একটা হচ্ছে যে আমি যদি এই করোনার সময় অন্য এয়ারলাইন্সের টিকিট করি, তাহলে তাদেরকে টাকা দিতে হয়। আর আপনারা জানেন, আন্তর্জাতিক রুটগুলো করোনার কারণে বন্ধ ছিল। আমাদের বিমানগুলো বসেই ছিল। আর একটা বিমান বসে থাকলে তার রক্ষণাবেক্ষণে একটা বিরাট টাকা খরচ হয়। 

    ‘সেজন্যই আমি বললাম, আমরা অন্য এয়ারলাইন্সকে টাকা না দিয়ে আমাদের বিমান নিয়ে আসব। কারণ ওরা তো দেশে বসে আছে। কাজেই আমাদের সঙ্গে আসলো আর ঘরের টাকা ঘরেই থাকল, বিমানই পেল।’

    দ্বিতীয় কারণ হিসেবে নিউইয়র্কে বিমানের ফ্লাইট পুনরায় চালুর কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, আমাদের লক্ষ্য যে নিউইয়র্কে অন্তত আমাদের নিজেদের বিমান আসবে। সেটাও আমরা আনতে চাই। জেএফকেতে (জনএফ কেনেডি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর) ল্যান্ডিং করার প্র্যাকটিসটাও হয়ে গেল। ভবিষ্যতে তো আসব। কাজেই তার প্র্যাকটিসটা এখানে থেকেই করে গেলাম।

    প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপির আমলে বিমানের সীমাহীন দুর্নীতি ছিল। এই পর্যন্ত প্রায় ১১টা বিমান আমরা ক্রয় করেছি, আজকে আমাদের ২১টা বিমান।

    শেখ হাসিনা বলেছেন, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ড্রিমলাইনারের বিজি-১৯০১ ফ্লাইটে করে দুটি কারণে নিউইয়র্কে এসেছি। প্রথম কারণ হচ্ছে- অন্য এয়ারলাইন্সের পরিবর্তে দেশি এয়ারলাইন্সকে অর্থ দেওয়া, এতে আমাদের অর্থ আমাদের হাতেই থেকে যায়। দ্বিতীয়ত হলো-প্লেন উড্ডয়ন না করলেও প্রতিদিন একটি বিরাট অংকের টাকা খরচ হয়। এমনিতেই করোনাভাইরাসের কারণে বিমানবন্দরের আন্তর্জাতিক ফ্লাইটগুলো স্থগিত রয়েছে। তাই নিজেদের প্লেনে এসেছি।

    শুক্রবার নিউইয়র্কের লাগার্ডিয়া এয়ারপোর্টের ম্যারিয়ট হোটেলে আওয়ামী লীগের যুক্তরাষ্ট্র শাখা আয়োজিত এক ভার্চুয়াল সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

    তার সরকার ঢাকা-নিউইয়র্ক রুটে পুনরায় ফ্লাইট চালুর একটি প্রক্রিয়া শুরু করেছে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমি শুনলাম, কেউ কেউ বলেছে, আমি নাকি কত বস্তা, না কত ট্রাঙ্ক বৈদেশিক মুদ্রা নিয়ে নাকি বিমানে এসেছি।  যারা এই কথাগুলো বলেছে, তারা যখন এই বিষয়টা জানে, তো সেই ট্রাঙ্কগুলো গেল কোথায়, রাখলাম কোথায়, কী হলো? সেই খোঁজটা তারা একটু দিক।’

    প্রধানমন্ত্রী বলেন, খালেদা জিয়া ক্ষমতায় থাকতে দেড়শ সুটকেস নিয়ে সৌদি আরব চলে গিয়েছিল এবং সেখানে লকার ভাড়া করে নাকি অনেক জিনিস রেখে এসেছিল শোনা যায়। তখন সেটা প্রচার হয়েছিল। 

    তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়ার মন্ত্রী বাবর (লুৎফুজ্জামান বাবর) যখন এখানে আসে, এয়ারপোর্টে ধরা পড়েছিল কয়েক লাখ ডলার নিয়ে। পরে অ্যাম্বাসি থেকে লোক গিয়ে কোনোমতে মুচলেকা দিয়ে তাকে ছাড়িয়েছিল।’

    সমালোচনাকারীদের উদ্দেশে শেখ হাসিনা বলেন, যাদের এই সমস্ত বদ অভ্যাস তারা সবাইকে, মানে নিজে চোর, সবাইকে ওই রকমই মনে করে। এটা হলো তাদের চরিত্র। এই ধরনের কথা তারা ছড়ায়, মনে করে যে এটা বোধহয় খুব প্রচার করতে পারবে।

    তিনি বলেন, সমালোচনাকারীরা একটা কথা ভুলে যায় যে আমি জাতির পিতার মেয়ে। আমরা দেশের জন্য কাজ করি, আর ক্ষমতাটা আমাদের কাছে দেশসেবা করা, মানুষের সেবা করা। আমরা অর্থ সম্পদের জন্য লালায়িত না।

    বিএনপির সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জিয়াউর রহমান, খালেদা জিয়া ও তাদের সন্তানরা ক্ষমতাটাকে ভোগের জায়গা বানিয়েছে। ক্ষমতাটাকে তারা নিজেদের ভাগ্য গড়ার জায়গা বানিয়েছে।

    তিনি বলেন, আমাদের কাছে ক্ষমতা হচ্ছে মানুষের ভাগ্য গড়া, বাঙালির ভাগ্য গড়া, বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্য গড়া। দেশের মানুষের উন্নত জীবন নিশ্চিত করতে সরকার প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে।


    সর্বশেষ

    আরও পড়ুন