The Bangladesh Today | Uniting people everyday

ঢাকা রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১

ডিজিটাল মার্কেটিং এ নিজেকে সফল উদ্যোক্তা হিসেবে দাঁড় করিয়েছেন চট্টগ্রামের আবু সাঈদ তনু

ডিজিটাল মার্কেটিং এ নিজেকে সফল উদ্যোক্তা হিসেবে দাঁড় করিয়েছেন চট্টগ্রামের আবু সাঈদ তনু

এস এম আকাশ, চট্টগ্রাম ব্যুরো : বর্তমানে চাকরি খুঁজে পাওয়া আর আকাশের চাঁদ হাতে পাওয়া প্রায় একই কথা, তারপরও চাকরির পেছনে ছুটছেন লক্ষ লক্ষ শিক্ষিত বেকার যুবক। করোনা মহামারির কারণে দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ, হতাশায় ডুবে আছেন চাকরি প্রত্যাশীরা। তবে অনেকেই আবার চাকরির আশায় বসে না থেকে বনে যাচ্ছেন উদ্যোক্তা থেকে সফল প্রতিষ্ঠাতা।

এই উদ্যোক্তার ধারাবাহিকতায় তেমনই একজন, চট্টগ্রামের সন্তান চট্টগ্রাম পোর্ট কলোনি বাসিন্দা তরুণ উদ্যোক্তা মোঃ আবু সাঈদ তনু । 

মাত্র ২১ বছর বয়সেই ডিজিটাল মার্কেটিংয়ে সফলতার সঙ্গে বিচরণ করছেন। শৈশবকাল থেকে নিত্যনতুন চিন্তাভাবনায় মগ্ন থাকতেন মোঃ আবু সাঈদ তনু । অনলাইন জগতের প্রতি অনেকটাই আসক্তি ছিল বলা যায় তাঁর। তবে অনলাইনে মূল্যবান সময়কে অপব্যবহার না করে কাজে লাগান আবু সাঈদ তনু। শিখে নেন ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের নানা কাজ, তরুণ বয়সেই একজন সফল ডিজিটাল মার্কেটার হতে লড়ে যাচ্ছেন এই উদ্যোক্তা তরুণ।

তাঁর জীবনের পথ চলা নিয়ে জানতে চাইলে "দি বাংলাদেশ টুডে" কে তনু বলেন, সফল হওয়ার চেষ্টায় যখন একজন মানুষ পরিশ্রম করে যায়, তখন অনেকে নানান রকম মন্তব্য করেন। তবে সফল হতে হলে এ সকল মন্তব্যকে প্রাধান্য না দিয়ে নিজের নির্দিষ্ট লক্ষ্যের দিকে এগিয়ে যেতে হবে।  সফল হওয়ার আগে অভিনন্দন  জানানোর মত লোক খুঁজে পাওয়া যায় না, এটাই চিরন্তন সত্য এটাই নিখুঁত বাস্তবতা । কিন্তু যখন সফল হবেন তখন অভিনন্দন জানানোর মত লোকের আর অভাব হবে না।

মোঃ আবু সাঈদ তনু আরও বলেন, উদ্যোক্তা হওয়ার জন্য অধিক পরিমাণের অর্থ, শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকা লাগবে- এইসব একপ্রকার মানুষের আত্মবিশ্বাস হারানোর মতো কথা। আমার মতে একজন উদ্যোক্তা হতে হলে থাকতে হবে নিজের উপর নিজের আত্নবিশ্বাস এবং  সেই সাথে থাকতে  হবে কঠোর পরিশ্রমের মানসিকতা আর কাজে লাগাতে হবে নিজের মেধাশক্তিকে এটাই প্রকৃত পুঁজি।

করোনা মহামারীর মধ্যেই চলতি বছরের ২৮ মার্চ মোঃ আবু সাঈদ তনু প্রতিষ্ঠা করেন "রবিন আইটি" নামক একটি অনলাইন ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান। তরুণদের নিয়ে পরিচালিত প্রতিষ্ঠানটির মূল লক্ষ্য তরুণ কন্টেন্ট ক্রিয়েটরদের বুস্ট বা প্রমোটের মাধ্যমে সাহায্য করা। পাশাপাশি সার্চ ইঞ্জিন, ওয়েব ডিজাইনিং, ওয়েব ডেভলপিংয়েরও কাজ করেন তারা।

নিজের কাজ সম্পর্কে তনু জানান, বর্তমান জীবন  অনেকটাই ইন্টারনেট নির্ভরশীল। বিশেষ করে করোনা আসার পর থেকেই ইন্টারনেট  নির্ভরতা আরও বেড়েছে। অনলাইনভিত্তিক নতুন নতুন কন্টেন্ট ক্রিয়েটর তৈরি হচ্ছেন। তবে অনেক কন্টেন্ট ক্রিয়েটর ভালো কিছু বানিয়েও জনপ্রিয়তা পাচ্ছেন না, কেবলমাত্র ডিজিটাল মাকেটিংয়ে অজ্ঞতার কারণে। তরুণদের কথা ভেবেই আমার প্রতিষ্ঠানটি চালু করেছি, আশা করছি দেশের মেধা ও বেকার যুবসমাজের জন্য আমার প্রতিষ্ঠান একটি নিবেদিত স্বাক্ষর রাখবে।