The Bangladesh Today | Uniting people everyday

ঢাকা মঙ্গলবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২১

‘মেসিকে ছেড়ে মস্ত বড় ভুল করেছে বার্সা’

‘মেসিকে ছেড়ে মস্ত বড় ভুল করেছে বার্সা’
ছবি: সংগৃহীত

বার্সেলোনা থেকে সাবেক সভাপতি জোসেপ মারিয়া বার্তোমেউর বিদায়টি ছিল অনেকটা লজ্জাজনকই। ক্লাবকে বিশাল দেনার মাঝে ঠেলে তো দিয়েছিলেনই পাশাপাশি খেলোয়াড়দের নিয়ে নানা ধরণের কুৎসা রটানোর সঙ্গেও জড়িত ছিলেন। অথচ সেই বার্তোমেউ বার্সেলোনার বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে বর্তমান সভাপতি হুয়ান লাপোর্তার সমালোচনা করেছেন।

প্রায় এক বছর হয় বার্সেলোনার দায়িত্ব ছেড়েছেন বার্তোমেউ। এরমধ্যে অনেক আলোচনা-সমালোচনা থাকলেও মুখে কুলুপ এঁটে ছিলেন তিনি। শেষ পর্যন্ত মুখ খুলেই বর্তমান সভাপতির সমালোচনায় মেতেছেন তিনি। লিওনেল মেসিকে ছেড়ে দেওয়ার জন্য লাপোর্তাকেই দায়ী করেন বার্তোমেউ।

অথচ তার সময়েই ক্লাব ছাড়তে চেয়েছিলেন মেসি। ৭০০ মিলিয়ন ইউরোর রিলিজ ক্লজের বাধায় আটকে রাখতে সমর্থ হয়েছিলেন বার্তোমেউ। তবে পরের মৌসুমেই মেসিকে ছেড়ে দেন লাপোর্তা। মেসিকে ছেড়ে দেওয়ার এ সিদ্ধান্তটা খুবই বাজে হয়েছে বলে মনে করেন সাবেক সভাপতি।

স্প্যানিশ গণমাধ্যম মুন্দো দেপোর্তিভোকে তিনি বলেছেন, ‘২০২০ সালে তাকে ধরে রাখতে লড়াই করেছে, এমন একজন হিসেবে বলছি, সে ক্লাবের অবিচ্ছেদ্য অংশ। সেটা শুধু বিশ্বের সেরা খেলোয়াড় হিসেবে নয়, বরং আর্থিক এবং প্রাতিষ্ঠানিকভাবে অবদান রাখার জন্যেও। তাকে ছেড়ে দেয়ার সিদ্ধান্তটা মস্ত বড় ভুল ছিল।’

বার্সেলোনার একের পর এক ভরাডুবিতে মেসি অবশ্য ২০২০ সালেই বার্সেলোনা ছাড়তে চেয়েছিলেন। তবে বার্তোমেউ প্রশাসন বিশ্বের অন্যতম সেরা এই ফুটবলারকে কিছুতেই ছাড়তে রাজি ছিল না। শেষে বিষয়টি যখন আদালত পর্যন্ত গড়াবার উপক্রম, তখন মেসিই নিজের সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসেন।

অথচ বার্সা ছেড়ে মেসি সাবেক গুরু পেপ গার্দিওলার ম্যানচেস্টার সিটিতে যাবেন, সেটা নাকি প্রায় নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিল। তবে বার্তোম্যু মেসিকে জানিয়ে দিয়েছিলেন ইউরোপের অন্য কোনো ক্লাবে বার্সা তাকে যেতে ছাড়বে না। বার্তোমেউ বলছেন, ‘আমি মেসিকে বলেছিলাম, সে যদি জাভি বা ইনিয়েস্তার মতো কাতার, চীন বা যুক্তরাষ্ট্রে যেতে চায়, তবে আমরা কথা বলতে পারি। কিন্তু তখনো মেসি কোনো দল ঠিক করেনি এবং সে চুক্তিহীন অবস্থাতেই যেতে চেয়েছিল।’

মেসি ধরে রাখার কৃতিত্ব নিজে নিলেও, বার্সেলোনার ফুটবল ইতিহাসের সবচেয়ে বিতর্কিত নাম সম্ভবত এই বার্তোমেউ। তিনি সভাপতি থাকাকালীন বোর্ডের প্রশাসনিক ব্যর্থতায় অর্থনৈতিক কাঠামো দুর্বল হতে শুরু করে কাতালান ক্লাবটি। একের পর এক ভুল সাইনিং আর খেলোয়াড়দের উচ্চ বেতনে ক্লাবের কোষাগার অনেক ধরেই একদম ফাঁকা! একসময় ইউরোপের সবচেয়ে লাভবান ক্লাবটির মাথায় উল্টো এখন কয়েক শ কোটি টাকার ঋণের বোঝা।