The Bangladesh Today | Uniting people everyday

ঢাকা মঙ্গলবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২১

১৫৩ রান তুলে অল-আউট টাইগাররা

১৫৩ রান তুলে অল-আউট টাইগাররা
ছবি: টুইটার

হারলে বিদায়, জিতলেও বাকি থাকবে অনেক কাজ- বাংলাদেশ দলের বিশ্বকাপ সমীকরণ এখন এতোটাই জটিল। সেই কঠিন চাপ মাথায় নিয়ে বাঁচা-মরার লড়াইয়ে ওমানের বিপক্ষে টস জিতে আগে ব্যাট করে ১৫৩ রানে অলআউট হয়ে গেছে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দল।

মাসকটের আল আমেরাত ক্রিকেট গ্রাউন্ডে মঙ্গলবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম পর্বের গ্রুপ 'বি'-তে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে স্বাগতিকদের মুখোমুখি হয়েছে বাংলাদেশ। টিকে থাকার এই লড়াইয়ে টসে জিতে শুরুতে ব্যাটিং বেছে নেন টাইগার দলপতি মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ব্যাটিং লাইনআপেও আসে বড় পরিবর্তন। তিনে সাকিবের জায়গায় নামেন মেহেদি হাসান। চারে সাকিব এবং পাঁচে আসেন নুরুল হাসান সোহান। ছয়ে আফিফ, সাতে মাহমুদউল্লাহ এবং ২০১০ সালের পর এই প্রথম টি-টোয়েন্টিতে আটে ব্যাট করেন মুশফিক।

ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি বাংলাদেশের। দুই ওপেনার লিটন দাস ও সৌম্য সরকারের বদলে সুযোগ পাওয়া মোহাম্মদ নাঈম রীতিমত ওয়ানডে স্টাইলে শুরু করেন। প্রথম ৩ ওভারে দুজনে মিলে কোনো বাউন্ডারিও বের করতে পারেননি। এরপর স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে মাত্র ৫ রান করা ডানহাতি ওপেনার লিটন আজ বিদায় নিয়েছেন ৭ বলে মাত্র ৬ রান করে। ইনিংসের তৃতীয় ওভারে বিলাল খানের বলে লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়েন লিটন।  

লিটনের বিদায়ের পরের ওভারে নাঈম এক বাউন্ডারি ও ছক্কা হাঁকিয়ে রানের গতি কিছুটা বাড়িয়েছেন। কিন্তু পরের ওভারেই ফায়াজ বাটের বলে কট অ্যান্ড বোল্ড হয়ে ফিরেছেন মেহেদি হাসান (০)। তবে চারে নামা সাকিব শুরু থেকেই কিছুটা আগ্রাসী ভঙ্গিমায় খেলতে থাকেন। ধীরে ধীরে খোলস ছেড়ে বেড়িয়ে আসেন নাঈমও। দুজনে মিলে ওমানি বোলারদের ওপর ছড়ি ঘুরিয়ে দারুণ এক জুটি গড়েন। অবশ্য নাঈম একাই দু'বার জীবন পেয়েছেন।  

নাঈমের ডাবল রানে বাংলাদেশের সংগ্রহ ১৪তম ওভারের প্রথম বলেই ১০০ ছুঁয়ে ফেলে। কিন্তু একই ওভারের তৃতীয় বলেই আকিব ইলিয়াসের সরাসরি থ্রোয়ে আউট হয়ে ফেরেন সাকিব। বিদায়ের আগে তার ব্যাট থেকে আসে ২৯ বলে ৬ চারে ৪২ রান। এছাড়া নাঈমকে নিয়ে ৫৩ বলে ৮০ রানের দারুণ এক জুটি উপহার দেন তিনি। এরপর নাঈম বাউন্ডারি হাঁকিয়ে ফিফটির দেখা পান ৪৩ বলে। কিন্তু ওই ওভারের শেষ বলে জিসান মাকসুদের বলে ক্যাচ তুলে দিয়ে বিদায় নেন নুরুল (৩)।

দারুণ খেলতে থাকা নাঈমকে যোগ্য সঙ্গ দিতে ব্যর্থ হন ছয়ে নামা আফিফ (১) । ১৭তম ওভারের প্রথম বলেই এক্সট্রা কভার বাউন্ডারি অঞ্চলে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন এই বাঁহাতি ব্যাটার। ওমানি বোলার কলিমুল্লাহর করা ওই ওভারের চতুর্থ বলে ডিপ মিড উইকেটে ক্যাচ তুলে নিয়ে বিদায় নেন নাঈমও। এর আগে তার ব্যাট থেকে আসে ৫০ বলে ৩ চার ও ৪ ছক্কায় ৬৪ রানের ঝলমলে এক ইনিংস।  

এরপর মুশফিক-মাহমুদউল্লাহ জুটিতে ভর করে বড় সংগ্রহের স্বপ্ন দেখলেও বাংলাদেশের এই দুই অভিজ্ঞ ব্যাটার আশা পূরণ করতে পারেননি। বিশেষ করে মুশফিক। ১৯তম ওভারের প্রথম বলে উইকেটরক্ষকের হাতে ক্যাচ তুলে দেওয়ার আগে তিনি করেন মাত্র ৬ রান। পরের বলেই লং-অফে ক্যাচ তুলে দেন সদ্য ক্রিজে আসা মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন (০)। তবে অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ শেষ ওভারের তৃতীয় বলে বোল্ড হওয়ার আগে ১০ বলে ১ চার ও ১ ছক্কায় ১৭ রানের ছোট কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস উপহার দেন। ইনিংসের শেষ বলে মোস্তাফিজ (২) তুলে মারতে গিয়ে বিদায় নিলে সব উইকেট হারায় বাংলাদেশ।