The Bangladesh Today | Uniting people everyday

ঢাকা সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১

‘সেফু দা’র সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখতেন হেলেনা জাহাঙ্গীর

‘সেফু দা’র সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখতেন হেলেনা জাহাঙ্গীর
সেফুদা ও হেলেনা জাহাঙ্গীর। ছবিঃ সংগৃহীত

সেফাতুল্লাহ ওরফে ‘সেফু দা’ নামে এক ব্যক্তি বিদেশে বসে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে অশ্লীল শব্দ উচ্চারণ করতো সেই ব্যক্তির সঙ্গে অবৈধ লেনদেনসহ নিয়মিত যোগাযোগ রাখতেন আওয়ামী লীগে পদ হারানো ব্যবসায়ী হেলেনা জাহাঙ্গীর।

আজ শুক্রবার (৩০ জুলাই) সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান র‌্যাবের গণমাধ্যম শাখার পরিচালক খন্দকার আল মঈন।

খন্দকার আল মঈন জানান, যেসব অবৈধ মদের বোতল উদ্ধার করা হয়েছে সবকিছু হেলেনা জাহাঙ্গীরের নিজ কক্ষে ছিল।  

হেলেনা জাহাঙ্গীর একজন উচ্চ বিলাসী মহিলা। বিভিন্ন রাজনৈতিক ব্যক্তিদের সঙ্গে ছবি তুলে সমাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দিয়ে নিজের উদ্দেশ্য হাসিল করতো।

হেলেনা জাহাঙ্গীরকে গুলশান থানায় হস্তান্তর করা হবে বলে জানান তিনি।

বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) সন্ধ্যায় হেলেনা জাহাঙ্গীরের বাসায় অভিযান চালানোর পর তাকে আটক করে র‌্যাব। রাত ১২টার দিকে অভিযান শেষে হেলেনা জাহাঙ্গীরকে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করে র‍্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসু। এ সময় তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য র‍্যাব সদর দপ্তরে নেওয়া হয়।

অভিযানের সময় হেলেনা জাহাঙ্গীরের বাসা থেকে কয়েক বোতল মদ, বিভিন্ন ধরনের মাদকদ্রব্য, বন্যপ্রাণীর চামড়া ও ওয়াকিটকি সেট উদ্ধার করা হয়।

এর আগে ২৫ জুলাই (রোববার) আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক কেন্দ্রীয় উপকমিটির সদস্যপদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয় তাকে।জয়যাত্রা টেলিভিশনের প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও এ ব্যবসায়ী এ বছর ১৭ জানুয়ারি উপকমিটির সদস্য হয়েছিলেন। তার আগে ২০২০ সালের ডিসেম্বরের দিকে তিনি কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য হন।

সম্প্রতি ‘চাকরিজীবী লীগ’ নামে একটি সংগঠনের সঙ্গে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের নাম যুক্ত করে নতুন সহযোগী সংগঠন গঠনের ঘোষণা দিয়ে সমালোচনার মুখে পড়েন ব্যবসায়ী হেলেনা জাহাঙ্গীর। এ ঘটনার পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ব্যাপক সমালোচিত হন তিনি। তার এমন কর্মকাণ্ডে বিব্রত হন খোদ আওয়ামী লীগেরই শীর্ষস্থানীয় নেতারা। এরই সূত্র ধরে গত ২৪ জুলাই হেলেনা জাহাঙ্গীরের সদস্য পদ বাতিলের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।